সাইনোসাইটিস এর চিকিৎসায় হিজামা থেরাপী:

সাইনোসাইটিস এর চিকিৎসায় হিজামা থেরাপী:
সাইনোসাইটিস আমাদের দেশে খুবই সাধারণ একটি রোগ। এ রোগে অল্প বয়সীরা খুব দ্রুত আক্রান্ত হয়। শীত ও বর্ষাকালে এর প্রকোপ অধিক হারে দেখা যায়। সাইনোসাইটিস খুব মারাত্মক কোনো রোগ নয়। কিন্তু এর ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির ভোগান্তির শেষ থাকে না। সাইনোসাইটিসজনিত মাথা ব্যথাকে প্রায়ই টেনশনের কারণে বলে মনে করা হয়।
সাইনোসাইটিস অনেক কারণে হয়ে থাকে। সাধারণভাবে যে সব কারণে হতে পারে সেগুলো হচ্ছে-নাকের ইনফেকশননাকের প্যাক, নাকের বাঁকা হাড়, নাকের মাংস ফুলে বড় হয়ে যাওয়া, নাকের পলিপ ইত্যাদি। দূষিত পানি কিংবা উচ্চমাত্রার ক্লোরিনযুক্ত পানিতে গোসল করলে পানি সাইনাসে প্রবেশ করে ইনফেকশন করতে পারে। আবার যে কোন আঘাতের কারণে সাইনাস ছিদ্র হয়ে উন্মুক্ত হলে ইনফেকশন হতে পারে।
দাঁতের ইনফেকশন মাড়ির একদম শেষ প্রান্তের দুটি দাঁত তুলে ফেলার সময় দাঁতের গোড়া দিয়ে সাইনাস উন্মুক্ত হয়ে পড়তে পারে এবং ইনফেকশন হতে পারে।
সাইনোসাইটিস-এর মূল উপসর্গ মাথা ব্যথা। এই ব্যথা চোখের নিচে এবং কপালে থাকে। এছাড়া মুখমন্ডল ও মাথার বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যথা হতে পারে। কোন সাইনাসে ইনফেকশন হয়েছে সে অনুযায়ী এই ব্যথার অঞ্চল পরিবর্তিত হয়। তবে ব্যথা নাকের গোড়ায়, উপরের চোয়ালের উপরে, চোখের নিচে, কপালে ও মাথার পিছন দিকে যে কোন স্থানে হতে পারে। ফুলে যেতে পারে চোখের নিচের কিংবা উপরের অংশের পাতা। চিবুক কিছুটা লাল হয়ে ফুলে যেতে পারে। নাকের ভিতরের পুঁজ একটি নির্দিষ্ট স্থান থেকে বেরিয়ে আসতে দেখা যাবে। নাকের ভিতরের মাংসগুলো ফোলা থাকতে পারে। নাকের হাড় বাঁকা থাকতে পারে। শারীরিক উপসর্গের মধ্যে রয়েছে- গা ম্যাজম্যাজে ভাব, জ্বর, শরীর ব্যথা ইত্যাদি।
সাইনোসাইটিস এর চিকিৎসা:
সাইনোসাইটিস এর চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয় হাই পাওয়ারের এন্টিবায়োটিসহ নানা ধরণের পাওয়ারফুল ওষুধ কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যথানাশক ওষুধ (পেইন কিলার) ব্যবহার করা হয় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় ঝুকিপূর্ণ ও ব্যয়বহুল অপারেশনের অনেকক্ষেত্রে অপারেশন করেও ভাল ফলাফল পাওয়া যায় না আবার সাইনাস ফিরে আসে।
 
সাইনোসাইটিস এর চিকিৎসায় হিজামা থেরাপী:
  • সাইনোসাইটিসের ব্যথা থেকে মুক্তির জন্য অত্যান্ত কার্যকরি চিকিৎসা হচ্ছে হিজামা থেরাপী
  • হিজামা বিশেষজ্ঞের মাধ্যমে শরীরের নিদৃষ্ট পয়েন্টে হিজামা থেরাপী নেওয়া
  • ঝুকিহীন ও সাইডএফেক্ট মুক্ত সুন্নাহভিত্তিক হিজামা থেরাপী ব্যবহার করুন ব্যথামুক্ত জীবন যাপন করুন
  • রোগ ও রোগীভেদে এক বা একাধিক সেশনের হিজামা থেরাপী দরকার হতে পারে।
আব্দুছ ছবুর চৌধুরী

ফাউন্ডার এবং সিইও

হিজামা এন্ড রুকিয়া ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ।

 

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest

নিজে জানুন,শেয়ার করে অন্যকে জানিয়ে দিন!

Share this post with your friends!