কোলেস্টেরোল (Cholesterol) প্রতিরোধে ও নিয়ন্ত্রণে হিজামা থেরাপী:

কোলেস্টেরোল (Cholesterol) প্রতিরোধে ও নিয়ন্ত্রণে হিজামা থেরাপী:
 

 কোলেস্টেরোল উচ্চশ্রেণির প্রাণিজ কোষের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। রক্তে উচ্চ কোলেস্টেরোলের উপস্থিতি রক্ত প্রবাহে বিঘ্ন ঘটায় ফলে হৃৎপিন্ড পর্যাপ্ত অক্সিজেন ও খাদ্যসার না পাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়। রক্ত চলাচল কমে যাওয়ার কারণে বুকে ব্যথা অনুভূত হয়। এই অবস্থাকে অ্যানজিনা (Angina) বলা হয়। এছাড়া ধমনিগাত্রে অধিক চর্বি জমা হলে রক্তপ্রবাহ বাধাগ্রস্থ হয় ফলে করোনারি হৃৎরোগের সম্ভাবনা বহূলাংশে বেড়ে যায়।

রক্তে উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরোল হৃৎপিন্ড এবং রক্ত সংবহনের বিশৃঙ্খলার সাথে জড়িত। কোলেস্টেরোল পিত্তরসের অন্যতম উপাদান হলেও এটি একটি বর্জ্য পদার্থ এবং যকৃতের মাধ্যমে দেহ থেকে অপসারিত হয়। পিত্তরসে কোলেস্টেরোলের মাত্রা বেড়ে গেলে তা তলনির মতো পিত্ত থলিতে জমা হয়। কোলেস্টেরোলের এ তলানিই শক্ত হয়ে পিত্তথলির পাথর (Gall bladder stone) নামে পরিচিত হয়।

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest

নিজে জানুন,শেয়ার করে অন্যকে জানিয়ে দিন!

Share this post with your friends!